Unlimited After Effects and Premiere Pro templates, stock video, royalty free music tracks & courses! Unlimited asset downloads! From $16.50/m
Advertisement
  1. Photo & Video
  2. Video
Photography

দৃশ্যমান শব্দভাণ্ডার: আপনার ডকুমেন্টারি শটে কিভাবে গতি আনতে পারবেন

by
Difficulty:BeginnerLength:ShortLanguages:
This post is part of a series called Documentary in Motion.
How to Add Motion to Your Documentary With a Timelapse

Bengali (বাংলা) translation by Syeda Nur-E-Royhan (you can also view the original English article)

ডকুমেন্টারি ভিডিও শুটিঙের বাস্তবতা প্রায়শই আখ্যানমূলক কথাসাহিত্য, মিউজিক ভিডিও, এবং কর্পোরেট প্রমোগুলোর মতো অন্যান্য ভিডিও শুটের চাইতে ভিন্ন রকম হয়। ডকুমেন্টারির ক্ষেত্রে আপনাকে অনিশ্চয়তার মুখোমুখি হতেই হবে। আপনার কাজ হবে শুধুমাত্র ঘটনা প্রবাহের সাথে তাল মিলিয়ে চলা এবং সাবলীল থাকার সর্বোচ্চ চেষ্টা করা। কারণ আপনি বলছেন সত্যিকার মানুষের গল্প, তুলে ধরছেন বাস্তব জগতে, যেখানে নতুন করে দৃশ্যধারণ কোন বিকল্প নয়।

কিন্তু আপনার ডকুমেন্টারিটিকে সিনেমাটিক এবং দৃশ্যমানের ভিত্তিতে আকর্ষণীয় করে তুলতে হলে শুধুমাত্র বিষয়বস্তুর দিকে ক্যামেরা তাক করে রাখাই যথেষ্ট নয়। আপনাকে আপনার সামগ্রিক দর্শন শৈলী, গতিভঙ্গি, এবং ক্যামেরা চালনা কৌশল খেয়াল রাখতে হবে। আর পোর্টেবল স্লাইডার, জিবস, এবং  ব্রাশলেস গিম্বলসের ব্যবহার বৃদ্ধির কারণে ক্যামেরার গতি নিয়ন্ত্রণে এসেছে আরও বেশি ভিন্নতা।

কাজেই কিসের ভিত্তিতে আপনি সিদ্ধান্ত নিবেন যে একটি স্থির শট নেওয়ার জন্য আপনি ক্যামেরাটি আটকে রাখবেন নাকি একটি চলতি দৃশ্য ধারণ করার জন্য সেটি হাতে তুলে নিয়ে নিজের পায়ে এগিয়ে যাবেন? যেসব দৃশ্য ধারণে প্রস্তুত হওয়ার জন্য আপনি কিছু সময় হাতে পাবেন সেসব ক্ষেত্রে আপনি কিভাবে বাছাই করবেন যে স্লাইডার শট নিবেন নাকি জিব সেট করবেন? আর সবার মনেই ঘুরপাক খায় যে প্রশ্নটি: ডকুমেন্টারি শুটের ক্ষেত্রে ব্রাশলেস গিম্বলস কোথায় কাজে লাগে?

লক ডাউন করুন

শুধুমাত্র সাক্ষাৎকার নেওয়ার সময়েই আপনি আপনার ট্রাইপডের প্যান লক করবেন আর নব ঘুরাবেন, তা কিন্তু নয়। বি-রোলের ক্ষেত্রে, আপনার সম্পাদনার মূল চিত্র মাথায় রেখে লকড ডাউন শটের পরিকল্পনা করাই সর্বোত্তম। সাধারণত, আপনি মোশন শটগুলোকে একসাথে এডিট করে একটা সিকুয়েন্স তৈরি করতে চাইবেন। যেমন, প্যান এবং স্লাইডগুলো একটি দিকে ধাবিত হচ্ছে, এমন। মোশন সিকুয়েন্সগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে এই লকড ডাউন শটগুলো খুব কাজে দেয়। এতে চিত্রের গতিশীলতার নিয়ন্ত্রণ এডিট করা আরও সহজ হয়।

নৈপুণ্য বজায় রাখা ছাড়াও, যেসব ক্ষেত্রে আপনার সাবজেক্ট ফ্রেমের মধ্যে ঢুকে বেরিয়ে যাবে সেসব শট নিতে আপনার ট্রাইপডটি লক করা জরুরী। সেটা হতে পারে ব্যক্তিবিশেষের ওয়াইড শট, তাদের হাতের ক্লোজআপ, বা মানুষ ছাড়াও অন্য যে কোন বস্তু। ক্যামেরা স্থির থাকবে, এবং আপনার সাবজেক্ট নিজে নিজেই ফ্রেমে প্রবেশ করে বেরিয়ে যাবে।

খুব কাছাকাছি কোন ক্লোজআপ শুটিং বা ম্যাক্রো লেন্স ব্যবহারের সময়ও আপনার লকড ডাউন শট নেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে। এমনকি কোন কোন সময় ক্যামেরার উপর আপনার হাত থাকলেও তাতে ঝাঁকুনি বা দুলুনি সৃষ্টি হতে পারে। এবং সবশেষে, টাইম ল্যাপ্স রেকর্ড করার সময় আপনার ক্যামেরা লকড রাখতে হবে। সেটা ছবি তোলা বা লম্বা কোন ভিডিও ক্লিপ তৈরি করা, দুই ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য।

প্যান বা টিল্ট যুক্ত করুন

আপনার পরিকল্পিত কোন দৃশ্য বা কোন সাবজেক্টের ক্লোজআপ নেওয়ার জন্য লকড ডাউন শট নেওয়া শেষ হওয়ার সাথে সাথে প্যান, টিল্ট, বা দুইটি নবই আনলক করে ওই একই দৃশ্য ক্যামেরা সামান্য নড়চড় করে তোলা সহজ হবে। কেন? লকড ডাউন শট যেমন আপনাকে এডিট করার সময় গতি নিয়ন্ত্রণ বাড়িয়ে দিবে, ঠিক তেমনি ওই একই শটের সচল ভার্সন সিকুয়েন্স এডিট করার সময় আপনাকে আরও বেশি কাজের ক্ষেত্র তৈরি করে দিবে।

কাজেই পরবর্তীতে আপনি যখন কোন লকড ডাউন শট নিতে যাবেন তখন কিছুটা সময় বের করে নিয়ে ওই একই দৃশ্য প্যান বা টিল্টের সাহায্যেও নিয়ে নিবেন। এতে আপনি একটা এডিট পয়েন্টও পেয়ে যাবেন যেখানে ফ্রেমের ভিতরে সাবজেক্ট বা অবজেক্ট না থাকলেও অন্য একটি দৃশ্যে স্থানান্তর করা যাবে। যেমন, আপনার সাবজেক্ট যদি হয় যে একজন শিল্পী একটি টেবিলের উপর কাজ করছে, তাহলে প্যানিং বা টিল্টিং শটের মাধ্যমে আপনি এই দৃশ্যটি  সুন্দরভাবে এডিট করে বসাতে পারবেন।

প্যানিং বনাম টিল্টিং

প্যানিং এবং টিল্টিঙের মধ্যে তুলনা করতে গেলে বলা যায় আমি যতোবার প্যান করি তার প্রায় ১/২০ ভাগ সময় টিল্ট করি। এটা একটা শিল্প নৈপুণ্যের বিষয় হতে পারে। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় এডিট করার পরে টিল্ট শটগুলো খুব বেশি চোখে লাগে। সম্ভবত এইজন্যই আপনি পরপর দু'টি বা তিনটি টিল্টিং শট খুব কমই দেখতে পাবেন। আর যদি না আপনি খুব লম্বা কিছু ধীরে ধীরে দৃষ্টিগোচর করতে চান, তাহলে টিল্ট শটগুলো বেশিরভাগ সময় দেখা যায় একদম মেঝে বা ছাদ থেকে শুরু অথবা সেহশ হয়। এর কোনটাই বিশেষভাবে দৃষ্টি আকর্ষণীয় নয়, অন্তত সাধারণ দৃষ্টিকোণ থেকে তো নয়ই।

ভালো টিল্ট শট নেওয়ার আরেকটি বাধা হচ্ছে আপনাকে একটি যথেষ্ট টেকসই এবং ভারী ট্রাইপড ব্যবহার করতে হবে যেটির একটি ভালো ফ্লুয়িড হেড রয়েছে এবং সেই সাথে আপনার ক্যামেরার বিপরীত ভারসাম্যও বজায় রাখবে।

তবে স্বীকার করতেই হবে, কিছু কিছু সময়ে একমাত্র টিল্টের মাধ্যমেই সঠিক শটটা নেওয়া সম্ভব। আপনার ডকুমেন্টারির শুরু বা শেষটা একবার ভাবুন। হতে পারে আপনি শুরুতে বা শেষে ধীরে ধীরে সাদায় মিশে যাওয়া একটি আকাশের দৃশ্য দিতে পারেন। আবার, কোণাকুণি ধরণের শট নিতে গেলে একটি প্যান এবং একটি টিল্টের একসাথে একটি যথার্থ শট নেওয়া সম্ভব। পরবর্তীতে কোন একটি সুন্দর ইন্টেরিয়র দৃশ্য উপস্থাপন করতে হলে বা একঘেয়ে কনফারেন্স রুমের শটে ভিজুয়াল ইন্টারেস্ট যুক্ত করতে এটি সাহায্য করবে। এই ধরণের আড়াআড়ি শট নেওয়াটা সত্যিকার অর্থেই অনেক চ্যালেঞ্জিং। কারণ ওই সময়ে আপনার গতির সাথে তাল মিলিয়ে একটি নির্দিষ্ট কোণ থেকে আপনাকে প্যান এবং টিল্ট করতে হবে।

স্লাইডার, জিব এবং গিম্বলের সঞ্চালন

উন্নত ক্যামেরা মোশনের মাধ্যমে আপনার ডকুমেন্টারিতে আরও বেশি করে আকর্ষণীয় ভিজ্যুয়াল যোগ করা যায়। এতে করে আপনার ভিডিও আরও বেশি মার্জিত এবং প্রফেশনাল মনে হবে। আর এই মোশন যোগ করার ফলে যদি গল্পটি আরও সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা যায় তাহলে তা বরং উৎসাহব্যঞ্জকই হবে। কিন্তু ট্রাইপড ব্যবহারের ফলে যদি একটি দ্রুত গতির ডকুমেন্টারি শুটের গতি কমে যায় তাহলে একটি স্লাইড, জিব, বা গিম্বল শট সেটআপের জন্য কতো বেশি পরিশ্রম করতে হবে একবার ভাবুন। আদৌ কি কোন লাভ আছে এতে?

উন্নত ক্যামেরা মোশন যন্ত্রপাতির জটিলতা আর আপনার ডকুমেন্টারিতে সেগুলো ব্যবহারের সত্যিকারের উপযোগিতার মধ্যে খুব সূক্ষ্ম একটা পার্থক্য রয়েছে। আমার অভিজ্ঞতা বলে, এসব যন্ত্রপাতি ব্যবহারের স্বাচ্ছন্দ্য, বহনযোগ্যতা, এবং উৎকর্ষতা থাকলে কষ্টকর এইসব ডকুমেন্টারি শুটিঙে এই ধরণের শট নেওয়া সম্ভব হয়। একা কাজ করতে গেলে সব যন্ত্রপাতি বহন করতে হবে। ফলে সেটআপ বা  ব্রেকডাউনের জন্য কোন সময় থাকবে না।

কাজেই আপনার স্লাইডার যদি মিনিট দুয়েকের মধ্যে প্রস্তুত করা সম্ভব হয় তাহলে সেগুলো একটা সঙ্গে নিয়ে নেওয়া যুক্তিযুক্ত। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় যে স্লাইডার ব্যবহারের কারণে ডকুমেন্টারির মান বেড়ে যায়। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে সাবজেক্টের পেছনের গল্প তুলে ধরে এমন কোন নিশ্চল বস্তু এবং ফ্রেমে আটকানো ছবির শুটিঙে এটি ব্যবহার করতেই বেশি পছন্দ করি। জিবের ব্যবহার অপেক্ষাকৃতভাবে সীমিত। এটি সেটআপ করাও অনেক বেশি কঠিন। তবে এর ব্যবহারে ডকুমেন্টারি শুটিঙে বিরল এমন এক ধরণের শট পাওয়া যাবে।

পরিশেষে, একটি ডকুমেন্টারি শুটে ব্রাশলেস গিম্বলের কাজটা আসলে কী? আপনি যদি "গিম্বল ব্যবহারের উপায়"সংক্রান্ত কিছু টিউটোরিয়াল ভিডিও দেখে দেখে ব্যবহারিক দক্ষতা বাড়ান তাহলে আপনার প্যান, টিল্ট, স্লাইডস, এবং জিব শটগুলোকে বেশ কার্যকরভাবেই প্রতিস্থাপন করা সম্ভব। তবে এটা সত্যিকারের কাজে লাগবে যখন সাবজেক্ট সক্রিয় থাকাকালে আপনি শুটিং করবেন। সেটা হতে পারে হাঁটা, গাড়ি চালানো, বাইক চালানো, বা অন্য যাই হোক না কেন। আপনার ডকুমেন্টারি শুটের সময় সাবজেক্ট যদি এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাতায়াত করে তাহলে নিশ্চিন্তে আপনার গিম্বলটি বাগিয়ে ধরুন এবং সাবজেক্টের চলাফেরার মধ্যেই শুট করতে থাকুন। এডিট করার সময় আপনি বিনা খাটুনিতে একটা সিকুয়েন্স পেয়ে যাবেন যেটা অন্যথায় পাওয়া যেতো না। আর স্থির ফুটেজের কারণে উদ্দেশ্যহীন পায়চারীকেও দেখাবে অসাধারণ।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Looking for something to help kick start your next project?
Envato Market has a range of items for sale to help get you started.